প্রাথমিকে শিক্ষক নিয়োগ আবেদন করেছে ১৩ লাখ

দীর্ঘ এক মাস ধরে সহকারী শিক্ষক পদে দেশের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নিয়োগের আবেদন শুরু হয়ে তা চাকরিপ্রত্যাশীদের জন্য গতকাল মঙ্গলবার রাত পর্যন্ত চলে। এর আগে গত ২৫ অক্টোবরে আবেদন শুরু হয়েছে। আবেদন শেষে যাচাই-বাছাইয়ের কাজ শেষ হলে নিয়োগের লিখিত পরীক্ষা শুরু হবে বলে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর (ডিপিই) সূত্রে জানা গেছে।
এদিকে গতকাল মঙ্গলবার পর্যন্ত প্রায় ১৩ লাখ আবেদনের পেমেন্ট জমা পড়েছে। চাকরিপ্রত্যাশীরা পেমেন্ট করতে পারবেন আগামী শুক্রবার রাত ১১টা ৫৯ মিনিট পর্যন্ত।

এছাড়াও শিক্ষক নিয়োগের আবেদনে ভুল সংশোধনের সুযোগ দিচ্ছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর (ডিপিই)। আবেদন ফি পরিশোধ করা প্রার্থীদের আগামী ২৮ নভেম্বর থেকে ৪ ডিসেম্বর পর্যন্ত ভুল তথ্য সংশোধন করা হবে বলে ডিপিই থেকে জানা গেছে।
জানা গেছে, অনলাইনে আবেদন করার সময় একাডেমিক সার্টিফিকেট গ্রহণ, বিশ্ববিদ্যালয় যুক্ত না থাকায় আবেদন সম্পন্ন না হওয়া, জেন্ডার (লিঙ্গ) নির্বাচনে ভুলসহ বিভিন্ন ধরনের জটিলতার সম্মুখীন হয়েছেন আবেদনকারীরা। বিষয়গুলোকে গুরুত্ব দিয়ে আবেদনে ভুল সংশোধন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ডিপিই।
তথ্যমতে, প্রাথমিকের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় এই নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিতে ৩০ বছর পূর্ণ হওয়া প্রার্থীরাও আবেদনের সুযোগ পাচ্ছেন। এতে প্রাক-প্রাথমিক ও প্রাথমিক মিলে সাড়ে ৩২ হাজার শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হবে। শূন্য আসনের সংখ্যা বৃদ্ধি পেলে এ সংখ্যা আরও বাড়ানো হবে বলে জানা গেছে। এছাড়া তিন পার্বত্য জেলা রাঙ্গামাটি, খাগড়াছড়ি ও বান্দরবানের প্রার্থীরা এতে আবেদন করতে পারবেন না।